সংখ্যা পদ্ধতি ও ডিজিটাল ডিভাইস ৩য় অধ্যায় এর HSC MCQ-12

১. বাইনারি নিয়মে গুণ করা মানে –

ক) বার বার যোগ করা  

খ) মবার বার বিয়োগ করা

গ) বার বার গুণ করা

ঘ) বার বার ভাগ করা

২. পূরক পদ্ধতিতে যোগের মাধ্যমে করা হয় –

ক) বিয়োগের কাজ  

খ) যোগের কাজ

গ) গুণের কাজ

ঘ) ভাগের কাজ

৩. যে সমবায় বর্তনীয় সাহায্যে যোগের কাজ করা হয়, তাকে বলে –

ক) ফ্যারাডে

খ) অ্যাডার

গ) অ্যাড

ঘ) ক্যাড

৪. অ্যাডার কত প্রকার?

ক) দুই প্রকার 

খ) তিন প্রকার

গ) চার প্রকার

ঘ) পাঁচ প্রকার

৫. বিশেষ রেজিষ্টার কত প্রকার?

ক) দুই প্রকার

খ)তিন প্রকার

গ) আট প্রকার

ঘ) নয় প্রকার

৬. ৫টি ফ্লিপ-ফ্লপ দ্বারা গঠিত একটি রিং কাইন্টারের স্টেট থাকে –

ক) ৫টি

খ) ১০টি

গ) ১৬টি

ঘ) ৩২টি

৭. রেজিষ্টার হলো এমন একটি সমন্মিত সার্কিট যা গঠিত হয় একগুচ্ছ –

ক) মেমোরি নিয়ে

খ) ফ্লিপ-ফ্লপ ও গেইট নিয়ে

গ) তার দিয়ে

ঘ) গেইট দিয়ে

৮. ইনপুটের উপর ভিত্তি করে কাউন্টার কত প্রকার?

ক) দুই প্রকার 

খ) তিন প্রকার

গ) চার প্রকার

ঘ) পাঁচ প্রকার

৯. ডেটা ট্রান্সফারের ভিত্তিতে রেজিষ্টারকে কতভাগে ভাগ করা যায়?

ক) দুই ভাগে

খ) তিন ভাগে

গ) চার ভাগে

ঘ) পাঁচ ভাগে

১০. রেজিষ্টারের নতুন তথ্য রাখাকে কী বলে?

ক) Coding

খ) Loading

গ) Booting

ঘ) Encounting

১১. গঠন অনুসারে রেজিষ্টার কত প্রকার?

ক) দুই প্রকার

খ) তিন প্রকার

গ) চার প্রকার

ঘ) পাঁচ প্রকার

১২. ১টি কাউন্টারের সবচেয়ে সরল সিকুয়েন্স হলো –

ক) বাইনরি সিকুয়েন্স 

খ) প্যারালাল সিকুয়েন্স

গ) অকটাল সিকুয়েন্স

ঘ) ডেসিমেল সিকুয়েন্স

১৩. কাউন্টার সর্বাধিক যতগুলো গুণতে পারে, তাকে বলে –

ক) ফ্লিপ ফ্লপ

খ) মডিউলাস

গ) ঘাত

ঘ) তাওয়ার

১৪. যে সমবায় বর্তনীয় সাহায্যে যোগের কাজ করা হয়, তাকে বলে –

ক) ফ্যারাডে

খ) অ্যাডার

গ) অ্যাড

ঘ) ক্যাড

১৫. ইনপুট ক্লক পালসের উপর ভিত্তি করে কাউন্টার কত প্রকার?

ক)  দুই প্রকার

খ) তিন প্রকার

গ)  চার প্রকার

ঘ) পাঁচ প্রকার

১৬.অ্যাসিনক্রোনাস কাউন্টার কত প্রকার?

ক) দুই প্রকার

খ) তিন প্রকার

গ) চার প্রকার

ঘ) পাঁচ প্রকার

April 19, 2017